ssaviation

অ্যাবে আহমেদ আলী ১৯৭৬ সালে ইথিওপিয়ায়  মুসলিম বাবা এবং খ্রিস্টান মায়ের ঘরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি শান্তি ও সুরক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে ডক্টরেট ডিগ্রি এবং রূপান্তরিত নেতৃত্বে  স্নাতকোত্তর সহ বেশ কয়েকটি ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

ssaviation

কিশোর বয়সে তিনি প্রাক্তন ডের্গ সরকারের বিরুদ্ধে সশস্ত্র লড়াইয়ে যোগ দিয়েছিলেন – একটি কমিউনিস্ট মিলিটারি জান্তা যে ১৯৭৪ থেকে ১৯৮৭ পর্যন্ত ইথিওপিয়ায় শাসন করেছিল। পরে তিনি রুয়ান্ডায় জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

মিঃ আহমেদ আফ্রিকার সবচেয়ে কনিষ্ঠ সরকার প্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করেন । ১৯৯৮-২০০০ এরিত্রিয়ার সাথে সীমান্ত বিবাদ চলাকালীন তিনি একটি গুপ্তচর দলকে ইরিত্রীয় প্রতিরক্ষা বাহিনীর অধীনে থাকা অঞ্চলগুলিতে বিভিন্ন মিশনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

২০১০ সালে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার আগে ওরোমো পিপলস ডেমোক্রেটিক অর্গানাইজেশনের সদস্য হয়ে রাজনীতিতে যোগ দিয়েছিলেন।এমপি হিসাবে তাঁর সময়টি মুসলিম ও খ্রিস্টানদের মধ্যে সংঘর্ষের অবসান করেন। তিনি “ধর্মের ফোরাম ফর পিস” স্থাপন করে সমস্যার দীর্ঘস্থায়ী সমাধানের সমাধান করেন।

ইথিওপিয়া-ইরিত্রিয়া যুদ্ধের ইতিহাস অন্ধকার এবং রক্তাক্ত। ২০ বছর ধরঅথাএকই সংস্কৃতি ও ভাষায় গড়ে ওঠা প্রতিবেশী দুই দেশ জমি, রাজনীতি এবং আদর্শের বিরুদ্ধে এক ভয়াবহ লড়াই করেছে। ১৯৯৮ সালে প্রথম যখন যুদ্ধ শুরু হয়েছিল, তখন যে পরিবারগুলি সীমান্তের উভয় পক্ষেই বিস্তৃত ছিল তারা সহিংসতায় আলাদা হয়ে গেছে। সংঘর্ষের প্রথম দুই বছরে আনুমানিক ৮০,০০০ মানুষ মারা গিয়েছিলেন, আত্মীয়স্বজন একে অপরের সাথে লড়াই করছিল যাকে ইরিত্রিয়া স্বাধীনতার যুদ্ধ বলে অভিহিত করেছিল। যে সমস্ত উপজাতিরা ঐতিহাসিকভাবে সীমান্ত অঞ্চল দখল করেছিল তাদের কাছে এটি গৃহযুদ্ধের মতোই বেশি অনুভূত হয়েছিল।

২০০০ সালে কিছু সময়ের জন্য শান্তি বিরাজ করেছিল । কয়েক মাস পরে একটি তুচ্ছ ঘটনায় সীমান্তে আবার সংঘর্ষ শুরু হয় যা উভয় দেশ থেকে অনেক সৈন্য এবং বিপুল পরিমাণে সম্পদ ক্ষতি গ্রস্থ হয়।এতে অনেক জাতীয় সম্পদ নষ্ট করে এবং নাগরিক সুবিধা ও উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ হয়। উভয় দেশে বসবাসকৃত পরিবারগুলির পুনরায় একত্রিত হওয়া প্রায়ই অসম্ভব ছিল।প্রতিবেশী দুটি দেশের মধ্যে এক   অদৃশ্য প্রাচীর  সৃষ্টি হয়।

মিঃ অ্যাবে প্রধানমন্ত্রীর পদ গ্রহণের মাত্র তিন মাস পরে জুন, ২০১৮ সালে শান্তি প্রক্রিয়া শুরু করেছিলেন। একটি আশ্চর্য পদক্ষেপে  তিনি ২০০০ সাল থেকে সৃষ্ট একটি  শান্তি চুক্তির অবহেলিত শর্তাবলী অনুসারে একটি বিতর্কিত সীমান্ত শহর ইরিত্রিয়াকে হস্তান্তর করবেন। কয়েক সপ্তাহ পরে অ্যাবে এবং ইরিত্রিয়ার রাষ্ট্রপতি ইসিয়াস আফওয়ারকির মধ্যকার যুদ্ধের অবসান ঘোষণা করলেন দুই দেশ।ঐ বছরের সেপ্টেম্বর মাসে সীমান্ত পুনরায় খোলা হয়েছিল, যাতে হাজার হাজার মানুষকে তাদের প্রিয়জনের সাথে পুনরায় একত্রিত হতে পারে।

তার সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য অর্জন, ইরিত্রিয়ার সাথে তিক্ত সীমান্ত বিরোধের অবসান ঘটিয়েছিলেন। এমনকি দুই দেশের দু’দশকের দ্বন্দ্বের কারণে ক্লান্ত হয়ে ওঠা জনগণের কাছে তাঁর জনপ্রিয় নেতা হয়ে ওঠা।

এছাড়াও, সুদান থেকে সোমালিয়া এবং জিবুতি হর্ন অফ আফ্রিকা খ্যাত অঞ্চলে সীমান্ত বিরোধ ও শান্তি আনতে তিনি যে ভূমিকা নিয়েছিলেন তাও তাৎপর্যপূর্ণ।

আবু সাঈদ মোঃ শহীদুজ্জামান/

অনুদিত/টাইমস/বিবিসি

 

একটি উত্তর দিন

অনুগ্রহ পূর্বক আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহ পূর্বক এখানে আপনার নাম লিখুন

thirteen + 6 =